শনিবার, আগস্ট ২৪, ২০১৯

শিশুর জন্ম মুহূর্ত

  • রিপোটারের নাম
  • ২০১৯-০১-২২ ০৭:৫০:৫৫
image

৩৬ বা ৩৭ সপ্তাহ গর্ভকাল পার হওয়ার পর প্রসবের জন্য একধরনের মানসিক প্রস্তুতি নিয়ে ফেলা ভালো। এই প্রস্তুতির সময় সবচেয়ে বড় উৎকণ্ঠা হলো, অন্তঃসত্ত্বা মা কীভাবে বুঝবেন যে তাঁর প্রসবের সময় হয়েছে? এ সময় তলপেটে একটু-আধটু ব্যথা, জরায়ুর সংকোচন হতেই পারে, কিন্তু প্রসবব্যথা বা প্রসবের লক্ষণগুলো মা সচেতন হলেই কেবল টের পাবেন। নয়তো হাসপাতালে যেতে দেরি হয়ে যেতে পারে। এর মধ্যে ঘটে যেতে পারে নানা বিপত্তি। স্বাভাবিক প্রসবের লক্ষণগুলো কী কী।
* তলপেটের ব্যথা ও জরায়ুর সংকোচন অনুভব করা* রক্তমিশ্রিত স্রাব নিঃসরণ* জরায়ুর মুখ খুলে যাওয়া* পানিপূর্ণ থলে তৈরি হওয়াগর্ভাবস্থার শেষ দিকে, বিশেষ করে ১-২ সপ্তাহ আগে থেকে ফলস লেবার পেইন হতে পারে। এটা আসল প্রসবব্যথা নয়। গর্ভধারণের ১৬ সপ্তাহ পর জরায়ুর সংকোচন হয়, যাকে বলে ব্রেক্সটন হিক্স কনট্রাকশন। তবে এর সঙ্গে ব্যথা থাকে না। সত্যিকারের প্রসবব্যথার কিছু উপসর্গ আছে। নিয়মিত বিরতিতে ব্যথা শুরু হবে, এর সঙ্গে জরায়ু সংকুচিত হয়, অর্থাৎ পেট শক্ত হয়ে আসবে। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে ব্যথার তীব্রতা ও স্থায়িত্ব দুটোই বাড়তে থাকবে। ব্যথা যাওয়া-আসা করবে। কিন্তু মধ্যের বিরতি ধীরে ধীরে কমে আসতে থাকবে। ব্যথাটা শুরু হয় পেছন দিক থেকে, তারপর ঊরু হয়ে সামনের দিকে ছড়িয়ে পড়ে। ব্যথানাশক বা ঘুমের ওষুধ—কোনো কিছুতেই ব্যথার উপশম হয় না।
 


এ জাতীয় আরো খবর